1. admin@jn24news.com : admin :
  2. mail.bizindex@gmail.com : newsroom :
শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪, ০৩:২৩ পূর্বাহ্ন

মেট্রোরেলের সার্বিক নিরাপত্তা এমআরটি ডিআইজি প্রধান জিহাদুল কবির

  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৩ জুন, ২০২৩
  • ১৪৪ Time View

জেএন ২৪ নিউজ ডেস্ক: মেট্রোরেলের সার্বিক নিরাপত্তা বিধানে ‘ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (এমআরটি) পুলিশ’ বা ‘এমআরটি পুলিশ’ এর প্রথম উপ-পুলিশ মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) হলেন জিহাদুল কবির। তিনি বর্তমানে শিল্পাঞ্চল পুলিশের ডিআইজি হিসেবে কর্মরত। পুলিশের নতুন এই ইউনিটের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন তিনি।

মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ থেকে এক প্রজ্ঞাপনে এ দায়িত্ব দেয়া হয়।

মেট্রোরেলের নিরাপত্তা বিধানে গত মাসে এমআরটি পুলিশ গঠন চূড়ান্ত করে সরকার। পুলিশের এ ইউনিটটিতে একজন উপ-পুলিশ মহাপরিদর্শকের (ডিআইজি) নেতৃত্বে ২৩১ জনের জনবল চূড়ান্ত করা হয়। পরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ পুলিশ-৩ শাখা থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। আর নতুন এই ইউনিটের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালনের জন্য নিয়োগ পেলেন জিহাদুল কবির।

একই দিনে এমআরটি পুলিশের প্রথম পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম। তিনি মাদারীপুর ইনসার্ভিস ট্রেনিং সেন্টারের কমান্ড্যান্ট হিসেবে কর্মরত আছেন।

ডিআইজি জিহাদুল কবির ১৯৯৭ সালে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফরেস্ট্রি অ্যান্ড উডটেকনোলজি ডিসিপ্লিন থেকে গ্রাজুয়েশন ডিগ্রি লাভ করেন।

আরও পড়ুন>সারাদেশে পুলিশের উচ্চপর্যায়ে বড় রদবদল

গতবছরের মে মাসে ডিআইজি পদে পদোন্নতি পান জিহাদুল কবির। পরে তাকে শিল্পাঞ্চল পুলিশে পদায়ন করা হয়। এর আগে জিহাদুল ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি ছিলেন। বিসিএস ২০তম ব্যাচের এই কর্মকর্তা পাবনা, চাঁদপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) ছিলেন। পুলিশে ভালো কাজের স্বীকৃতি স্বরুপ তিনি ‘বাংলাদেশ পুলিশ পদক-বিপিএম’ এবং ‘রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক-পিপিএম’ পান।

এমআরটি পুলিশের কাঠামো

গত মাসে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, এমআরটি মেট্রোরেল সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তিনটি ক্যাডার পদ ও ২২৮টি নন-ক্যাডার পদসহ মোট ২৩১টি পদ সৃজন এবং ১৫টি যানবাহন টিওঅ্যান্ডইভুক্তকরণ হয়েছে।

কেন্দ্রীয় প্রশাসনিক কাজের জন্য পদ:

একজন ডিআইজি, একজন পুলিশ সুপার, দুজন পরিদর্শক, একজন ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র), একজন ইন্সপেক্টর (সশস্ত্র), দুজন এসআই (নিরস্ত্র), দুজন এসআই (সশস্ত্র), তিনজন এএসআই (নিরস্ত্র), চারজন এএসআই (সশস্ত্র), পাঁচজন নায়েক, ১০ জন কনস্টেবল, একজন কম্পিউটার অপারেটর, একজন হিসাবরক্ষক, একজন উচ্চমান সহকারী ও অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক দুজন।

এমআরটি লাইন-৬ এর জন্য পদ:

একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, ছয়জন ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র), দুজন এসআই (নিরস্ত্র), ৩৪ জন এএসআই (নিরস্ত্র) ও ১৫৩ জন কনস্টেবল।

যানবাহনের বিবরণ:

একটি জিপ, চারটি পিক-আপ ও ১০টি মোটরসাইকেল।

সার্বিক দিক বিবেচনায় মেট্রোরেল ও যাত্রীদের নিরাপত্তায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মেট্রোরেলের জন্যও আলাদা ইউনিট গঠনের প্রস্তাব ছিল শুরু থেকেই। রেলওয়ে পুলিশ বাংলাদেশ পুলিশের একটি অন্যতম প্রাচীন বিশেষায়িত ইউনিট। এটি ১৮৮১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। রেলওয়ে পুলিশ তার অধিক্ষেত্রে জেলা পুলিশের মতোই আইনশৃঙ্খলা রক্ষা, অপরাধ দমন, তদন্ত ও অন্য পুলিশিং কার্যক্রম পরিচালনা করে। এমআরটি পুলিশও অনুরূপভাবে মেট্রোরেলের সার্বিক নিরাপত্তা, যাত্রীদের নিরাপত্তার পাশাপাশি নিয়ম-শৃঙ্খলা ও অপরাধ দমনে কাজ করবে।

উদ্বোধনের আগে ও উদ্বোধন পরবর্তীসময়ে এমআরটি পুলিশ গঠনের আগ পর্যন্ত নিরাপত্তার স্বার্থে পুলিশের রিজার্ভ ফোর্স ও থানা পুলিশ নিরাপত্তা দিয়ে আসছিল।

গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মেট্রোরেলের শুভ উদ্বোধন করেন। প্রথম দিনই চালু হয় উত্তরা উত্তর ও আগারগাঁও স্টেশন দুটি। উদ্বোধনের দিন উত্তরা উত্তর স্টেশন থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত পথে মেট্রোরেলে ভ্রমণ করেন প্রধানমন্ত্রী। পরদিন ২৯ ডিসেম্বর থেকে মেট্রোরেল সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হয়।

এরপর একে একে আরও দুটি স্টেশন চালু হয়। এর মধ্যে গত ২৫ জানুয়ারি পল্লবী স্টেশন ও গত ১৮ ফেব্রুয়ারি চালু হয় উত্তরা স্টেশন। এরপরে পঞ্চম স্টেশন হিসেবে চালু হয় মিরপুর-১০ নম্বর স্টেশন। গত ৩১ মার্চ আগারগাঁও থেকে উত্তরা স্টেশনের সবগুলো খুলে দেওয়া হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 Breaking News
Theme Customized By BreakingNews