1. admin@jn24news.com : admin :
  2. mail.bizindex@gmail.com : newsroom :
শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪, ০৪:১৬ পূর্বাহ্ন

মস্কোর ওয়াগনারের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সামরিক হেলিকপ্টার মোতায়েন

  • Update Time : শনিবার, ২৪ জুন, ২০২৩
  • ৫৭ Time View

জেএন ২৪ নিউজ ডেস্ক: মস্কোর দিকে অগ্রসর হওয়া বিদ্রোহী ওয়াগনার ভাড়াটেদের বহরের বিরুদ্ধে সামরিক হেলিকপ্টার মোতায়েন করেছে রাশিয়া। শনিবার বিকালে হেলিকপ্টার থেকে ওয়াগনার সেনাদের ওপর গুলি বর্ষণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

ইতোমধ্যে দক্ষিণ রাশিয়ার একটি শহর দখলে নিয়েছে ওয়াগনার গ্রুপ। প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এক শতাব্দী আগের রাশিয়ার গৃহযুদ্ধের তুলনায় সশস্ত্র বিদ্রোহকে অধিক চূর্ণ করার অঙ্গীকার করেছেন।

ইয়েভজেনি প্রিগোজিনের ব্যক্তিগত ওয়াগনার মিলিশিয়ার যোদ্ধারা ইউক্রেনের সীমান্তের কাছাকাছি দশ লাখের বেশি লোকের শহর রোস্তভ-অন-ডনের নিয়ন্ত্রণে ছিল এবং পশ্চিম রাশিয়ার মধ্য দিয়ে দ্রুত উত্তর দিকে অগ্রসর হচ্ছিল।

রয়টার্সের একজন সাংবাদিক সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টারগুলিকে একটি সশস্ত্র ওয়াগনার কলামে গুলি চালাতে দেখেছেন যেটি একটি ফ্ল্যাটবেড ট্রাকে সৈন্য বহনকারী এবং কমপক্ষে একটি ট্যাঙ্ক নিয়ে ভোরোনেজ শহরের পাশ দিয়ে অগ্রসর হচ্ছিল। শহরটি রোস্তভ থেকে মস্কো পর্যন্ত প্রায় ১১০০ কিমি হাইওয়ে ধরে অর্ধেকের বেশি পথ।

ইউক্রেন থেকে রাশিয়ায় তার বাহিনীকে নেতৃত্ব দেওয়ার পরে দেশটির দক্ষিণের সামরিক জেলা রোস্তভের সদর দপ্তর দখল করেছিলেন বলে জানিয়েছিলেন প্রিগোজিন।

রোস্তভ শহরটি রাশিয়ার সমগ্র আক্রমণ বাহিনীর পিছনের প্রধান লজিস্টিক হাব হিসেবে কাজ করেছে। মস্কোর রাস্তায় নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছিল। রেড স্কয়ার ধাতব ব্যারিকেড দিয়ে অবরুদ্ধ ছিল।

বিদেশে যুদ্ধের সময়কার বিদ্রোহকে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে রাশিয়ার বিপ্লব এবং গৃহযুদ্ধের সঙ্গে তুলনা করে পুতিন একটি টেলিভিশন ভাষণে বলেছিলেন, ‘অতিরিক্ত উচ্চাকাঙ্ক্ষা এবং স্বার্থ রাষ্ট্রদ্রোহের দিকে পরিচালিত করেছে। যারা ইচ্ছাকৃতভাবে বিশ্বাসঘাতকতার পথে পা দিয়েছে, যারা সশস্ত্র বিদ্রোহের জন্য প্রস্তুত করেছে, যারা ব্ল্যাকমেইল এবং সন্ত্রাসী পদ্ধতির পথ নিয়েছে, তারা অনিবার্য শাস্তি ভোগ করবে, আইন এবং আমাদের জনগণ উভয়ের কাছেই জবাব দেবে।’

একজন প্রিগোজিন বিদ্বেষী দ্রুত উত্তর দিয়েছিলেন যে তিনি এবং তার লোকদের নিজেদেরকে পরিণত করার কোন ইচ্ছা ছিল না। প্রিগোজিন একটি অডিও বার্তায় বলেন, ‘রাষ্ট্রদ্রোহের কথা বলার সময় রাষ্ট্রপতি একটি গভীর ভুল করেন। আমরা আমাদের মাতৃভূমির দেশপ্রেমিক, আমরা এর জন্য লড়াই করেছি এবং লড়াই করছি। আমরা চাই না দেশ দুর্নীতি ও প্রতারণার মধ্যে থাকুক।’

পশ্চিমা রাজধানীগুলো বলেছে, তারা পারমাণবিক অস্ত্রধারী রাশিয়ার পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে ব্রিফ করা হয়েছে।

ব্রিটেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, ‘সাম্প্রতিক সময়ে এটি রাশিয়ার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জের প্রতিনিধিত্ব করে। আসন্ন ঘন্টাগুলিতে, রাশিয়ার নিরাপত্তা বাহিনী এবং বিশেষ করে রাশিয়ান ন্যাশনাল গার্ডের আনুগত্য, এই সঙ্কট কীভাবে কার্যকর হবে তার মূল বিষয় হবে।’

বিদ্রোহ ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণকারী বাহিনীকে বিশৃঙ্খল অবস্থায় ফেলে দেওয়ার ঝুঁকিও রাখে, ঠিক যেমন কিয়েভ গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে সবচেয়ে শক্তিশালী পাল্টা আক্রমণ শুরু করছে।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বার্তায় লিখেছেন, ‘রাশিয়ার দুর্বলতা স্পষ্ট। সম্পূর্ণ দুর্বলতা এবং রাশিয়া যত বেশি সময় আমাদের ভূমিতে তার সৈন্য এবং ভাড়াটে সৈন্যদের রাখবে, তত বেশি বিশৃঙ্খলা, যন্ত্রণা এবং সমস্যা তার নিজের ওপর এসে পড়বে।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 Breaking News
Theme Customized By BreakingNews