১ মাস পর না.গঞ্জের পাঁচ রুটে লঞ্চ চলাচল শুরু

0
49

জেএন ২৪ নিউজ ডেস্ক : ঈদ উপলক্ষে যাত্রী সাধারণের চলাচল বিবেচনায় নারায়ণগঞ্জ থেকে পাঁচ রুটে ৭০ ফুট দৈঘ্যের ‘সানকেন ডেক’ ছোট ১৮টি লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ।

রবিবার সকাল থেকে লঞ্চ চালুর অনুমতি দেয় বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। গত মাসে একটি লঞ্চডুবির ঘটনায় ১০ জনের মৃত্যুর পর থেকে ৭০ ফুট দৈর্ঘ্যের নিচের ৫২টি লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দিয়েছিল বিআইডব্লিউটিএ।

গত ২০ মার্চ শীতলক্ষ্যা নদীতে কার্গো জাহাজ রূপসী-৯ এর ধাক্কায় যাত্রীবাহী লঞ্চ এম.এল আফসার উদ্দিন ডুবে ১০ জনের মৃত্যু হয়। ওই ঘটনার পর থেকে দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি এড়াতে নারায়ণগঞ্জ থেকে পাঁচ রুটে চলাচলকারী ‘সানকেন ডেক’ ৭০টি যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেয় বিআইডব্লিউটিএ। তবে একটি সি-ট্রাক ও ঢাকা থেকে আগত দুটি লঞ্চ চালু করা হয়। এই রুটগুলোর চাহিদা অনুযায়ী লঞ্চের সংখ্যা কম ছিল।

বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের উপ-পরিচালক (নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক) বাবু লাল বৈদ্য জানান, নারায়ণগঞ্জের পাঁচ রুটে ৭০ ফুট দৈর্ঘের লঞ্চ মোট ১৮টি লঞ্চ চালুর অনুমতি দেওয়া হয়েছে। সকাল থেকে একে একে লঞ্চ চলাচল করতে শুরু করেছে। অন্যগুলো চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়নি।

তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জ-চাঁদপুর ১৩টি, নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ একটি নারায়ণগঞ্জ-রামচন্দ্রপুর ২টি, নারায়ণগঞ্জ-নড়িয়া একটি, নারায়ণগঞ্জ-মতলব একটি, করে এই পাঁচ রুটে মাত্র ১৮টি লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিএ উপ-পরিচালক (নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক) আরও জানান, এসব লঞ্চ চলাচলে বেশকিছু শর্ত দেয়া হয়েছে। লঞ্চগুলো সেই শর্ত মানছে কিনা তা ১ মাস পরীক্ষা করা হবে।

তিনি জানান, স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারকৃত লঞ্চসমূহ নির্দিষ্ট লাইনে চলাচলের পাশাপাশি সকল ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। প্রত্যেকটি লধ্যে চলাচলের পূর্বে সার্ভে সনদে উল্লেখিত মাস্টার ও ড্রাইভার দ্বারা লঞ্চ পরিচালনা করা এবং সার্ভে সনদে উল্লেখিতসংখ্যক জীবন রক্ষাকারী সরঞ্জামাদি লঞ্চের যথাস্থানে রাখা নিশ্চিত করতে হবে। আগামী ২০২৩ সালের ৩০ এপ্রিলের মধ্যে উল্লিখিত ১৮টি লঞ্চকে ‘সানকেন ডেক’ বিশিষ্ট নৌযানের স্থলে হাইডেকবিশিষ্ট নৌযান প্রতিস্থাপন করতে হবে এবং প্রতিটি নৌযানকে মুন্সিগঞ্জ ঘাট ধরে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে যেতে হবে।

দীর্ঘদিন পর লঞ্চ চালু হওয়ায় খুশি যাত্রীরা। আগের তুলনায় লঞ্চঘাটেও যাত্রীর সংখ্যা বাড়তে শুরু করেছে। তবে সব লঞ্চ চলাচলের অনুমতি না দেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-চলাচল যাত্রী পরিবহন সংস্থা।

নারায়ণগঞ্জ লঞ্চ মালিক সমিতির সভাপতি মো. বদিউজ্জামান বাদল জানান, আমাদের ৭০টি লঞ্চের মধ্যে তাদের ১৮টি লঞ্চ চালুর অনুমতি দেওয়া হয়েছে। আমরা এই সিদ্ধান্তের নিন্দা জানাই।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালের ৪ এপ্রিল শীতলক্ষ্যা নদীর কয়লাঘাট এলাকায় এসকেএল-৩ কার্গো জাহাজের ধাক্কায় যাত্রীবাহী লঞ্চ এমএল সাবিত আল হাসান ডুবে ৩৪ জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছিল।