1. admin@jn24news.com : admin :
  2. mail.bizindex@gmail.com : newsroom :
শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০১:৩৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
লিপ ইয়ারে সুসংবাদ দিলেন দীপিকা-রণবীর! জিডিপিতে বিমার অবদান বৃদ্ধি বাড়াতে সরকার কাজ করছে: প্রধানমন্ত্রী বাড়ছে করোনা, এ মাসেই মৃত্যু ৮ জনের ইউটিউব দেখে খতনার চর্চা গিয়ে প্রতিবেশী কিশোরের হাতে শিশুর মৃত্যু ভিকারুননিসায় ছাত্রীদের যৌন হয়রানির বিভিন্ন তথ্য পাওয়া গেছে: পুলিশ সাবেক স্বামীর মৃত্যুর পর চিকিৎসক লতাও মারা গেলেন নতুন মাত্রায় অপরাধ মোকাবিলায় পুলিশকে প্রস্তুত থাকতে হবে: প্রধানমন্ত্রী পশ্চিমারা রুশকে নতুন অস্ত্র প্রতিযোগিতায় টেনে আনতে চায়: পুতিন ঢাকা বার নির্বাচন কেন্দ্র করে উত্তেজনা, জজকোর্ট চত্বরে ককটেল বিস্ফোরণ বিসিএস নির্বাচনে ড. আরেফিন-ববী প্যানেলের নিরস্কুশ বিজ বাংলাদেশ কম্পিউটার সোসাইটির কেন্দ্রীয় ব্যবস্থাপনা

সাবেক চেয়ারম্যান গ্রেপ্তার, ইউপি সদস্যকে হত্যার ঘটনার পর মধ্যপ্রাচ্যে চলে যান ফাঁসির আসামি

  • Update Time : বুধবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৪৭ Time View

জেএন ২৪ নিউজ ডেস্ক: ১৯ বছর আগে কেরানীগঞ্জের রোহিতপুর ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আনোয়ার হোসেনকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। ২০০৬ সালের এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ফাঁসির আসামি সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান কামাল উদ্দীনকে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

র‌্যাবের দাবি, ২০০৭ সালে কৌশলে মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশে চলে পালিয়ে যান প্রধান আসামি সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান কামাল উদ্দীন। দীর্ঘ ১৬ বছর পর ২০১৯ সালে দেশে ফিরে এসে নিজের পরিচয় গোপন করে সিলেটের বিভিন্ন স্থানে বসবাস শুরু করেন। মূলত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গ্রেপ্তার এড়াতে বারবার তার অবস্থান পরিবর্তন করে আত্মগোপনে থাকতো। সর্বশেষ হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ এলাকায় আত্মগোপনে থাকাকালীন অবস্থায় র‌্যাব তাকে গ্রেপ্তার করে।

বুধবার (২৫ অক্টোবর) দুপুরে কারওয়ান বাজার র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান বাহিনীর আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, ২০০৬ সালের ১ ফেরুয়ারি রোহিতপুর ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য আনোয়ার হোসেনকে কেরানীগঞ্জের সৈয়দপুর ঘাটে সন্ত্রাসীরা দেশিয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে নৃশংসভাবে শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর জখম করে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে স্থানীয়রা তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ভর্তি করেন এবং ওই দিন রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আহত আনোয়ার মৃত্যুবরণ করেন।

এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে ১৩ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো কয়েকজনকে আসামি করে ঢাকার কেরানীগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নম্বর-২। তারিখ ৩ ফেরুয়ারি, ২০০৬।

র‍্যাবের মুখপাত্র বলেন, একজন ইউপি সদস্য হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তখন এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের তৈরি হয়েছিল এবং বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় গুরুত্বের সঙ্গে প্রচারিত হয়েছিল। দায়েরকৃত হত্যা মামলার তদন্ত কার্যক্রম শেষে তদন্তকারী কর্মকর্তা ২০০৮ সালের ৩১ মে হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী ও নেতৃত্ব প্রদানকারী সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিনসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট দেন।

পরবর্তীতে আদালত ২০০৯ সালের ২৫ আগস্ট বিচারিক কার্যক্রম শেষে পলাতক আসামি কামাল উদ্দিনসহ ২ জনকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ, ৩ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং ৩ জনকে খালাস প্রদান করেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারে র‌্যাব নজরদারি অব্যাহত রাখে।

এরই ধারাবাহিকতায় গত রাতে র‌্যাব-১০ এর একটি আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৯ এর সহযোগিতায় হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ইউনিয়ন পরিষদের ইউপিমেম্বার আনোয়ার হোসেনকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ফাঁসির পলাতক প্রধান আসামি সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান কামাল উদ্দীনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার কামাল উদ্দীন ইউপি সদস্য আনোয়ার হোসেন হত্যাকাণ্ডে তার সম্পৃক্ততার বিষয়ে তথ্য দিয়েছে।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন আরও বলেন, নিহত ইউপি সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন কেরানীগঞ্জের রোহিতপুর ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্যের পাশাপাশি স্থানীয় বাজারে আড়তদারী ব্যবসা করতেন। বিভিন্ন সময় সন্ত্রাসী কার্যক্রম, মাদকসহ বিভিন্ন ধরণের অপরাধ, ভূমি দস্যুতাসহ বিভিন্ন অবৈধ কার্যক্রমের বিরুদ্ধে তিনি প্রতিবাদ করতেন বিধায় কেরানীগঞ্জের রোহিতপুরের তরুণ ও যুব সমাজের মাঝে তার ভাল জনপ্রিয়তা ছিল।

এ কারণে তিনি স্থানীয় সন্ত্রাসী ও ভূমি দস্যুদের শত্রুতে পরিণত হয়। ২০০৬ সালের ১ ফেব্রুয়ারি স্থানীয় সন্ত্রাসীরা তাকে দেশিয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে নৃশংসভাবে শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। গুরুতর আহত অবস্থায় আনোয়ার হোসেনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে সন্ধ্যায় তাকে রাজধানীর বক্ষব্যাধি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর রাতে সেখান থেকে এ্যাপোলো হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। পরবর্তীতে ভোরবেলায় এ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আনোয়ার হোসেন মৃত্যুবরণ করেন।

তিনি বলেন, কেরাণীগঞ্জের রোহিতপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান কামাল উদ্দীনের পরিকল্পনা ও নেতৃত্বে হত্যাকাণ্ডটি সংঘটিত হয়। কামাল উদ্দীন ইউপি চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে এলাকায় একটি সন্ত্রাসী দল গঠন করে এবং অবৈধ বালুর ব্যবসা, জোরপূর্বক ভূমি দখল, ত্রাণের মালামাল কুক্ষিগত করা ও এলাকায় বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতো। নিহত আনোয়ার হোসেন বিভিন্ন সময়ে তার বিভিন্ন অবৈধ ও সন্ত্রাসী কার্যক্রমে প্রতিবাদ করতো। গ্রেপ্তার কামালের এমন অবৈধ ও অন্যায় কাজের প্রতিবাদ করায় নিহত আনোয়ার স্থানীয়দের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেন। গ্রেপ্তার কামালের অবৈধ বালুর ব্যবসা ও ভূমি দস্যুতা নিয়ে তৎকালীন বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ার পেছনে আনোয়ার হোসেনের সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে ধারণা করে গ্রেপ্তার কামাল।

এ জন্য আনোয়ারের জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে ও এলাকায় একক আধিপত্য বিস্তারের লক্ষ্যে আনোয়ারকে উচিত শিক্ষা দেয়ার পরিকল্পনা করে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান কামাল।

পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ইউপ সদস্য আনোয়ার ২০০৬ সালের ১ ফেব্রুয়ারি সৈয়দপুর ঘাটে মাছের আড়তে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে নদী পার হওয়ার উদ্দেশ্যে নৌকায় উঠার সময় কামালের নেতৃত্বে পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী ৮-১০ জনের একটি সন্ত্রাসী দল দেশিয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আনোয়ার হোসেনের শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। একপর্যায়ে আনোয়ার হোসেনের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে কামালসহ তার সন্ত্রাসী দল দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।

কমান্ডার মঈন বলেন, হত্যাকাণ্ডের পর নিহতের স্ত্রী কর্তৃক কেরাণীগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়েরের খবর পেয়ে কামাল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর গ্রেপ্তার এড়াতে দেশের বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে থেকে ২০০৭ সালে কৌশলে মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশে গমন করে। দীর্ঘ ১৬ বছর পর ২০১৯ সালে দেশে ফিরে এসে নিজের পরিচয় গোপন রেখে সিলেটের বিভিন্ন স্থানে বসবাস শুরু করে এবং পুনরায় সেখানে বিয়েও করেন। মূলত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গ্রেপ্তার এড়াতে বারবার তার অবস্থান পরিবর্তন করে আত্মগোপনে থাকতো। সর্বশেষ হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ এলাকায় আত্মগোপনে থাকাকালীন অবস্থায় র‌্যাব তাকে গ্রেপ্তার করে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 Breaking News
Theme Customized By BreakingNews