1. admin@jn24news.com : admin :
  2. mail.bizindex@gmail.com : newsroom :
শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪, ০৪:৫৭ পূর্বাহ্ন

ন্যাটোতে যুক্ত হয়েছে ফিনল্যান্ড, রাশিয়ার সঙ্গে জোটের সীমানা এখন দ্বিগুণ

  • Update Time : মঙ্গলবার, ৪ এপ্রিল, ২০২৩
  • ৪১ Time View

জেএন ২৪ নিউজ ডেস্ক: ন্যাটো নিরাপত্তা জোটের ৩১তম সদস্য হিসেবে মঙ্গলবার যুক্ত হয়েছে ফিনল্যান্ড। শীঘ্রই জোটের সদর দপ্তরে দেশটির পতাকা উত্তোলন করা হবে৷ ফিনল্যান্ড ন্যাটোতে যুক্ত হওয়ায় রাশিয়ার সঙ্গে এর সীমানা বেড়ে দিগুণ হয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, ফিনল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে যোগদানের নথি হস্তান্তর করেন। তারপর তিনি ফিনল্যান্ডকে সদস্য হিসেবে ঘোষণা করেন।

ফিনল্যান্ডের জোটে যোগদান রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের জন্য একটি ধাক্কা বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। পুতিন ইউক্রেনে তার পূর্ণ মাত্রায় আক্রমণের আগে বারবার ন্যাটোর সম্প্রসারণের বিষয়ে অভিযোগ করে আসছিলেন।

ন্যাটো সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে রাশিয়ার সীমান্তের দৈর্ঘ্য এখন দ্বিগুণ হয়েছে। রাশিয়ার সঙ্গে ফিনল্যান্ডের ১ হাজার ৩৪০ কিমি পূর্ব সীমান্ত রয়েছে। ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে গত মে মাসে সুইডেনের এবং ফিনল্যান্ড ন্যাটোতে যোগদানের জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে আবেদন করে।

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ সতর্ক করে বলেছেন, ফিনল্যান্ডে কী ঘটছে তা ‘নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করবে’ রাশিয়া। ন্যাটোর সম্প্রসারণকে তিনি রাশিয়ার নিরাপত্তা এবং জাতীয় স্বার্থের লঙ্ঘন বলে বর্ণনা করেছেন।

ফিনল্যান্ড এবং সুইডেন উভয়ই পূর্বে জোটনিরপেক্ষ নীতি গ্রহণ করেছিল। কিন্তু ইউক্রেন আগ্রাসনের পর তারা ন্যাটোর আর্টিকেল ফাইভের সুরক্ষা বেছে নিয়েছে, যেখানে বলা হয়েছে একজন সদস্যের ওপর হামলা মানে সবার ওপর হামলা।

প্রকৃতপক্ষে এর অর্থ হেলো যদি ফিনল্যান্ড আক্রমণ করা হয় তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ সমস্ত ন্যাটো সদস্যরা তার সাহায্যে আসবে।

রাশিয়ার আগ্রাসনের ফলে ৮০ ভাগ ফিনিশ জনগণ ন্যাটোতে যোগদানের পক্ষে মত দিয়েছে। ন্যাটো মহাসচিব জেনস স্টলটেনবার্গ মঙ্গলবার সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটি ফিনল্যান্ডকে নিরাপদ এবং ন্যাটোকে আরও শক্তিশালী করবে। প্রেসিডেন্ট পুতিনের একটি ঘোষিত লক্ষ্য ছিল ইউক্রেনে আগ্রাসন যাতে তার সীমান্তে ন্যাটোর কম আধিপত্য পাওয়া যায় এবং ইউরোপে আর সদস্যপদ না পাওয়া যায়, তিনি ঠিক তার বিপরীতে পাচ্ছেন।’

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন বলেছেন, তিনি ‘বলতে প্রলুব্ধ হয়েছিলেন যে এটিই সম্ভবত এমন একটি জিনিস যার জন্য আমরা পুতিনকে ধন্যবাদ জানাতে পারি। কারণ তিনি আবার এখানে এমন কিছু প্ররোচিত করেছেন যা তিনি দাবি করেছেন যে তিনি রাশিয়ার আগ্রাসন প্রতিরোধ করতে চান।’

সুইডেনের আবেদন আপাতত আটকে গেছে, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান স্টকহোমের বিরুদ্ধে কুর্দি জঙ্গিদের মদদ দেওয়ার এবং তাদের রাস্তায় বিক্ষোভের অনুমতি দেওয়ার অভিযোগ করেছেন। হাঙ্গেরি এখনও সুইডেনের যোগদানের অনুমোদন দেয়নি।

ব্লিঙ্কেনের কাছে যোগদানের নথি হস্তান্তর করার সময় ফিনিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী পেক্কা হাভিস্টো বলেছিলেন, আমার একটি খুব গুরুত্বপূর্ণ প্রাথমিক কাজ ছিল। কাজটি হল নিজেকে জমা দেওয়া এবং সুইডিশ সদস্যতার জন্য আমাদের অনুমোদন দেওয়া।’

স্টলটেনবার্গ বলেছেন, এর আগে ন্যাটো নিশ্চিত করবে যে সুইডেন যোগদানের পরবর্তী সদস্য হবে।

ন্যাটোর মার্কিন রাষ্ট্রদূত জুলিয়ান স্মিথ বিবিসিকে বলেছেন, ‘ফিনল্যান্ডের একটি ভয়ঙ্কর মিত্র, অত্যন্ত সক্ষম, আমাদের মূল্যবোধ শেয়ার করে এবং আমরা টেবিলে তার উপযুক্ত আসনে একটি বিরামহীন রূপান্তর আশা করি।’

তিনি বলেন, তিনি আশা করেন যে জুলাইয়ে লিথুয়ানিয়ায় পরবর্তী ন্যাটো শীর্ষ সম্মেলনে সুইডেনও যোগ দেবে।

ক্রেমলিন বলেছে, কৌশলগতভাবে রাশিয়াকে তার নিজস্ব নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পাল্টা ব্যবস্থা নিতে বাধ্য করা হচ্ছে। কিন্তু উল্লেখ করেছে যে ইউক্রেন যেভাবে ‘রুশ-বিরোধী’ হয়ে উঠেছে সেভাবে হেলসিঙ্কির সঙ্গে তার কখনোই মতবিরোধ ছিল না।

এদিকে প্রতিরক্ষা মন্ত্রী সের্গেই শোইগু মঙ্গলবার বলেছেন, রাশিয়ার স্বল্প-পাল্লার ইস্কান্দার-এম ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা বেলারুশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে এবং এটি পারমাণবিক পাশাপাশি প্রচলিত অস্ত্র বহনে সক্ষম। কিছু বেলারুশিয়ান ফাইটার জেটও পারমাণবিক অস্ত্র বহনে সক্ষম।

জেনস স্টলটেনবার্গ বলেন, ন্যাটো এখনও রাশিয়ার পারমাণবিক ভঙ্গিতে এমন কোনো পরিবর্তন দেখেনি যা জোটের কোনো পরিবর্তনের প্রয়োজন হবে। হেলসিঙ্কিতে সরকারের সম্মতি ছাড়া ফিনল্যান্ডে ন্যাটো সেনা মোতায়েন থাকবে না।

বাল্টিক সাগরে ন্যাটোর এখন সাত সদস্য থাকবে, সেন্ট পিটার্সবার্গে রাশিয়ার উপকূলীয় অ্যাক্সেস এবং কালিনিনগ্রাদের ছোট এক্সক্লেভকে আরও বিচ্ছিন্ন করবে।

পেসকভ বিবিসিকে বলেছেন, কীভাবে ন্যাটো ফিনিশ অঞ্চল ব্যবহার করে রাশিয়া তা নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করবে। যেখানে অস্ত্র ব্যবস্থা এবং অবকাঠামো স্থাপন করা হবে তা আমাদের সীমান্তের একেবারে কাছে থাকবে এবং এটি আমাদের জন্য সম্ভাব্য হুমকিস্বরূপ। তার ভিত্তিতে, ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 Breaking News
Theme Customized By BreakingNews