1. admin@jn24news.com : admin :
  2. mail.bizindex@gmail.com : newsroom :
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৯:৪২ পূর্বাহ্ন

জাতীয় নির্বাচন নিয়ে রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যের পর চীনের প্রতি যে আহ্বান জানালো বিএনপি

  • Update Time : শনিবার, ১১ নভেম্বর, ২০২৩
  • ৬৩ Time View

জেএন ২৪ নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশের ‘সংবিধান অনুযায়ী’ আসন্ন জাতীয় নির্বাচন দেখতে চায় বলে ঢাকায় নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত যে বক্তব্য দিয়েছেন, তা বাংলাদেশের ‘জনগণের ইচ্ছা বা আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন নয়’ বলে প্রতিক্রিয়া দিয়েছে বিএনপি।

গত বৃহস্পতিবার চীনা রাষ্ট্রদূত ওই বক্তব্য দেওয়ার দুদিন পর শনিবার বিএনপির পক্ষ থেকে জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর নামে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে দলটি এ প্রতিক্রিয়া জানালো।

‘বিআরআইর ১০ বছর: পরবর্তী সোনালি দশকের সূচনা’ শীর্ষক এক সেমিনারে চীনা দূত ইয়াও ওয়েন বাংলাদেশের আসন্ন নির্বাচন নিয়ে কথা বলেন। চীন দূতাবাসের সহযোগিতায় ওই সেমিনারের আয়োজক ছিল ডিপ্লোম্যাটিক করেসপন্ডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ (ডিক্যাব)।

চীনা রাষ্ট্রদূত বলেছিলেন, তার দেশ বাংলাদেশের সংবিধান মেনে চলার ওপর গুরুত্বারোপ করে এবং সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন দেখতে চায়। আসন্ন নির্বাচন বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়। পররাষ্ট্রনীতির আলোকে চীন কোনো দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে জোরপূর্বক হস্তক্ষেপের বিরোধিতা করে।

রাষ্ট্রদূতের এমন বক্তব্য জাতীয়তাবাদী দল—বিএনপি ও বাংলাদেশের গণতন্ত্রমনা জনগণের দৃষ্টিগোচর হয়েছে উল্লেখ করে বিজ্ঞপ্তিতে দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘চীনের রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য বাংলাদেশের জনগণের মতের প্রতিফলন নয়।’

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘চীনা রাষ্ট্রদূত ওয়েন নির্বাচনের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশের সংবিধান মেনে চলার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। বাংলাদেশকে নিয়ে তার এই উদ্বেগকে আমরা স্বাগত জানাই। পাশাপাশি এটিও মনে করিয়ে দিতে চাই, বাংলাদেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র ও সংসদীয় গণতন্ত্র প্রবর্তনকারী দল হিসেবে বিএনপি সবসময় সেই সংবিধানের প্রতি অঙ্গীকারবদ্ধ, যা জনগণ দ্বারা অনুমোদিত ও গৃহীত।’

বিজ্ঞপ্তিতে রিজভী উল্লেখ করেন, জাতীয় ঐকমত্যের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত, সর্বজনস্বীকৃত ও বহুল প্রশংসিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে সরকার বাতিল করেছে। ২০১৪ এবং ২০১৮ সালে পরপর দুটি প্রহসনমূলক জাতীয় নির্বাচন স্পষ্টতই প্রমাণ করেছে, শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচন সম্ভব নয়। কারণ, নির্বাচনের নামে যে রাষ্ট্রীয় দুর্বৃত্তায়ন, তাতে অনেক ক্ষেত্রে সহযোগীর ভূমিকায় অবতীর্ণ নির্বাচন কমিশন, প্রশাসন, বিচার বিভাগ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি চিহ্নিত অংশ।

‘জনগণের একটি সুবিশাল অংশ গত দশ বছরে ভোট প্রদানের কোনো সুযোগ পাননি। আর তাই, দেশের বিপুল জনগোষ্ঠী শেখ হাসিনার অধীনে নয় বরং নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন চাচ্ছেন।’

রিজভী বলেন, ‘চীনের রাষ্ট্রদূতের মন্তব্যটি এমন এক সময়ে এসেছে যখন সমগ্র জাতি গণতন্ত্রের জন্য ঐক্যবদ্ধ হয়ে, নিজেদের ভোটের অধিকার ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ পুনরুদ্ধারের প্রয়াসে, আন্দোলনের মাধ্যমে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের দাবি জানাচ্ছে।’

বিএনপির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে দীর্ঘদিনের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ব্যবসা, বাণিজ্য, জ্ঞান ও অন্যান্য দ্বিপাক্ষিক স্বার্থের ভিত্তিতে। বিএনপি বিশ্বাস করে, দুই দেশের জনগণের মাঝে সম্পর্ক স্থাপনেই কূটনৈতিক সাফল্য নিহিত।’

বাংলাদেশের জনগণের অভিপ্রায় ও স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়াদির প্রতি আলোকপাত করার জন্য চীনের প্রতি আহ্বান জানিয়ে রিজভী বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষের চলমান সংগ্রামে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল সর্বাত্মক সমর্থন প্রত্যাশা করে, যেন অচিরেই বাংলাদেশে একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন সম্পন্ন হয়।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 Breaking News
Theme Customized By BreakingNews