1. admin@jn24news.com : admin :
  2. mail.bizindex@gmail.com : newsroom :
বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১১:১৭ পূর্বাহ্ন

আগস্ট মাস এলে বিএনপি নেতাদের ভয়ে চোখ-মুখ শুকিয়ে যায়: কাদের

  • Update Time : বুধবার, ১৬ আগস্ট, ২০২৩
  • ৫৬ Time View

জেএন ২৪ নিউজ ডেস্ক: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আগস্ট মাস এলে সত্যের মুখোমুখি হতে বিএনপি ভয় পায় এবং নেতাদের চোখ-মুখ শুকিয়ে যায়।

তিনি বলেন, ইতিহাসের অনেক প্রশ্ন আছে। সেই প্রশ্নের জবাব বারবার চেয়েও তাদের কাছে পাইনি। ১৫ আগস্টের খুনিদের নিরাপদে বিদেশে কে পাঠালো, খুনিদের বিদেশে চাকরি দিয়ে পুরস্কার করলো কে? জিয়াউর রহমান নয়?

বুধবার বিকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বঙ্গবন্ধুর ৪৮তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি। আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা।

আওয়ামী লীগের স্মরণ সভায় সূচনা বক্তব্যে ওবায়দুল কাদের বলেন, জিয়াউর রহমান খুনিদের দুঃসাহস না দিলে ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ড ঘটতো কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন আছে। সত্যের মুখোমুখি হতে বিএনপি ভয় পায়। এ কারণে আগস্ট মাস এলে বিএনপি নেতাদের চোখ মুখ শুকিয়ে যায়।’

তিনি বলেন, ১৯৭৫ এ বীরপুরুষ কর্নেল জামিল, আমরা সবাই কাপুরুষ। আমাদের যাদের বঙ্গবন্ধু ডেকেছিলেন, ভয়ে সাড়া দিইনি। আপনাদের বীরপুরুষ বলা যাবে? আমরা কাপুরুষ। ইতিহাসে এ সত্যকে অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু হত্যার পর ডালিমের সঙ্গে দেখা করে জিয়াউর রহমান বলেছিল ওয়েল ডান। ফারুকদের প্রস্তাবে কী বলেছিল সবই আছে লিখিত। হত্যা যে করে আর হত্যার যে মদদ দেয়, উভয় সমান অপরাধী।

বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘মির্জা ফখরুলকে বারবার একই প্রশ্ন করেছি, আবারও সেই প্রশ্ন করি, খন্দকার মোশতাকের সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনী বাংলাদেশের সংবিধানের অন্তর্ভুক্ত করেছিল কে? জিয়াউর রহমান। পঞ্চম সংশোধনী কে করেছিল? মির্জা আব্বাসের লজ্জা করে না? যখন বলে সংবিধানের কাটা-ছেঁড়া করেছে আওয়ামী লীগ, তাদের কাটা-ছেঁড়া সংবিধান আমরা মানি না। মির্জা আব্বাসের লজ্জা করে না? জিয়াউর রহমান এ সংশোধন এনেছিল বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার বন্ধ করতে। বিচার হবে না।’

ইতিহাস কাউকে ক্ষমা করবে না উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়ার জন্মদিনের অভাব নেই। তার ছয়টা জন্মদিন। বিএনপিকে জিজ্ঞেস করি-এক জন মানুষের কয়টা জন্ম দিবস থাকে? ছয় ছয়বার জন্মদিবস একথা যখন আমি বলি তখন ফখরুল বলে শিষ্টাচার বহির্ভূত। মিথ্যাচার, বিষোদগার। ক্ষমা করবে না ইতিহাস।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ডের সব সত্য আমরা এখনো জানি না। সব সত্য এখনো বের হয়ে আসেনি। অজানা অনেক তথ্য রয়ে গেছে। একদিন সত্য প্রকাশ হবেই। বঙ্গবন্ধুর কন্যা বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার করেছেন। সেখানে অনেক সত্য বেরিয়ে এসেছে। কিন্তু এ সত্য আমরা কতজনে স্বীকার করি? ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু কয়েকজনকে ফোন করেছিলেন। এরা নেতাও আছেন, সেনা প্রধান আছেন, কে সাড়া দিয়েছিল? কে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়েছেন? সত্য যদি বলতে হয়, শুধুমাত্র কর্নেল জামিল ছুটে এসেছিল ৩২ নম্বরে। আমরা কোনো নেতা আসিনি। আমরা কেউ বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে ৩২ নম্বর আসিনি। ঘাতকরা যখন গুলি করছিলেন তখন বঙ্গবন্ধু কর্নেল জামিলকে ফোন করেছিলেন। সোবহানবাগ একবার বাধাপ্রাপ্ত হয়েছিলেন, কর্নেল জামিল কোনো বাধা মানেননি, তিনি ছুটে গেছেন বঙ্গবন্ধুর ভবনের দিকে, আর তাকে পথের মধ্যে হত্যা করা হয়।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এতে আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ ও উপ-প্রচার সম্পাদক আব্দুল আওয়াল শামীমের সঞ্চালনায় আলোচনায় সভায় বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, শেখ সেলিম, কামরুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর কবির, যুগ্ম সাধরণ সম্পাদক ডা. দীপু মণি, সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য তারানা হালিমসহ ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 Breaking News
Theme Customized By BreakingNews